ভারতের বৃহত্তম শহর কোনটি? উত্তরঃ মুম্বাই

ভারতের বৃহত্তম শহর হল মুম্বাই (Mumbai)। মুম্বাই শহরে ভ্রমণের জন্য বহু উল্লেখযোগ্য স্থান রয়েছে, যেমন – গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়া, ফিল্ম সিটি, হাজী আলী, মহালক্ষ্মী ধোবি ঘাট, মেরিন ড্রাইভ, জুহু বিচ, সিদ্ধিবিনায়াক মন্দির, মহালক্ষ্মী মন্দির, কানহেরি গুহা প্রভৃতি।

আর আছে ধারাভি বস্তি (Dharavi slum) মুম্বাইয়ের ধারাভি বিশ্বের বৃহত্তম বস্তি হিসেবে বিবেচিত। এর আয়তন ২.১ বর্গ কিলোমিটার এবং জনসংখ্যা প্রায় ১,০০০,০০০। ধারাভি বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকাগুলির মধ্যেও একটি।

পড়ুন:- ভারতবর্ষের যাবতীয় তথ্য

ভারতের বৃহত্তম শহর কোনটি
ভারতের বৃহত্তম শহর মুম্বাই

Table of Contents

মুম্বাই শহর

ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের রাজধানী শহর মুম্বাই (বোম্বে নামেও পরিচিত, সরকারি নাম ছিল ১৯৯৫ পর্যন্ত )। মুম্বাই ভারতের পশ্চিমের কোঙ্কন উপকূলে অবস্থিত এবং এখানে একটি প্রাকৃতিক বন্দর রয়েছে। ২০০৮ সালে মুম্বাইকে আলফা ওয়ার্ল্ড সিটির নাম দেওয়া হয়। এটি ভারতের সবচেয়ে ধনী শহর। এখানে ভারতের বিভিন্ন শহরের বেশিরভাগ কোটিপতি ও বিলিয়নিয়াররা বাস করেন।

মুম্বাই ভ্রমণ

মুম্বাইয়ের প্রধান দর্শনীয় স্থানগুলি ভ্রমণের জন্য দুই থেকে পাঁচ দিন যথেষ্ট।
মুম্বাইতে চারটি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট রয়েছে:- এলিফ্যান্টা গুহা, ছত্রপতি শিবাজী মহারাজ টার্মিনাস,গ্লোবাল বিপাসনা প্যাগোডা এবং ভিক্টোরিয়ান অ্যান্ড আর্ট ডেকো বিল্ডিং যা শহরের আকর্ষণকে অনেক গুন্ বাড়িয়ে দেয়।

Chhatrapati Shivaji Terminus railway station
Chhatrapati Shivaji Terminus railway station

মুম্বাই ভ্রমণের উপযুক্ত সময়

উপকূলীয় শহর হিসেবে, মুম্বাইয়ের তাপমাত্রা বছরের বেশিরভাগ সময় ৩০ºC এর কাছাকাছি থাকে। অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আবহাওয়া বেশ মনোরম থাকে, তাই এই সময়টা মুম্বাই ট্রিপ এর জন্য খুব ভালো ।

মেরিন ড্রাইভ
মেরিন ড্রাইভ

মুম্বাই শহর এর উল্লেখযোগ্য স্থান

  • ছত্রপতি শিবাজী মহারাজ টার্মিনাস: মুম্বাইয়ের কেন্দ্রে অবস্থিত ছত্রপতি শিবাজী টার্মিনাস হল ইউনেস্কোর আরেকটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলে ১৮৮৮ সালে নির্মিত এই ভবনটি ভিক্টোরিয়ান-গথিক স্থাপত্যশৈলীর উদাহরণ দেয়।
  • গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়া মুম্বাই: গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়া মুম্বাই শহরের প্রধান বৈশিষ্ট্য। গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়া একটি বড় খিলান দ্বারা গঠিত, যার উচ্চতা ২৬ মিটার এবং এটি ইন্দো-সারাসেনিক স্টাইলে তৈরী করা।
  • মেরিন ড্রাইভ: মেরিন ড্রাইভ নামে পরিচিত এই পর্যটন স্পটটিকে শহরের স্থানীয়রা সোনাপুরও বলে থাকে। এটি প্রায় ৩ কিমি দীর্ঘভাবে প্রসারিত সি বিচ । মেরিন ড্রাইভকে ‘কুইনস নেকলেস’ নামেও উল্লেখ করা হয়, কারণ রাতে কোনো উঁচু স্থান থেকে দেখলে রাস্তার আলো পড়ায় মুক্তার সারির মতো দেখায়।
  • এলিফ্যান্টা কেভস: গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়া থেকে ১০ কিমি দূরে অবস্থিত মুম্বাইয়ের অন্যতম প্রধান পর্যটন স্থান, এলিফ্যান্টা গুহা। গুহাগুলি দেশের প্রাচীনতম শিলা পরিকাঠামোর মধ্যে একটি এবং এই গুহাটিতে ভগবান শিবের বিভিন্ন ঘটনা এবং রূপ হয়েছে। এটি প্রাচীন ভারতীয় শিল্পের একটি নিখুঁত উদাহরণ।
  • সিদ্ধিবিনায়াক মন্দির: বলা হয় মুম্বাইয়ে অবস্থিত সবচেয়ে সুন্দর মন্দিরগুলির মধ্যে একটি সিদ্ধিভিনায়ক মন্দির। প্রতিদিন, বহু ভক্ত মন্দিরে প্রার্থনা করতে আসেন। বলিউড সেলিব্রিটিরাও সিদ্ধিভিনায়ক যান দর্শনের জন্য।
  • জুহু বিচ: মুম্বাইয়ের অন্যতম দর্শনীয় স্থান জুহু সৈকত, যা ভিলে পারলেতে অবস্থিত। জুহু সমুদ্র সৈকতে বেশিরভাগ পর্যটক সূর্যাস্ত উপভোগ করতে আসে।
  • হাজী আলী: হাজী আলী দরগা মুম্বাইয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় ও দর্শনীয় স্থান। সাদা চুনকাম করা কাঠামোটি ৪,৫০০ মিটার এলাকা নিয়ে ছড়িয়ে আছে এবং মার্বেলের স্তম্ভ দ্বারা তৈরী। অনেকের মতে, হাজী আলীর অলৌকিক ক্ষমতা আছে এবং যে এখানে প্রার্থনা করে তার ইচ্ছা পূরণ হয়।
Elephanta Caves Mumbai inside
Elephanta Caves Mumbai inside

পড়ুন:- সমস্ত ভ্রমণ গন্তব্য গুলি

মহারাষ্ট্রের বিখ্যাত খাবার কি?

বেশিরভাগ মারাঠী খাবারগুলি হল রুটি, ভাত এবং মসুর ডাল দিয়ে তৈরি খাবার । মহারাষ্ট্রের কিছু জনপ্রিয় খাদ্য সামগ্রী হল পোহা, মিসাল পাভ, বাড়া পাভ, রস, আমতি, সাবুদানা খিচড়ি , পুরান পলি, শ্রীখন্ড ইত্যাদি। ।

আমি কিভাবে ৩ দিনের মধ্যে মুম্বাই পরিদর্শন করতে পারি?

প্রথম দিন

প্রথম দিনেই মুম্বাইয়ের সবচেয়ে বিখ্যাত স্থানগুলি কভার করার রাখার চেষ্টা করুন। এর মধ্যে রয়েছে:
গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়া
কোলাবা
চৌপাটি
বান্দ্রা-ওরলি সি লিংক
হাজি আলী মসজিদ।
আর দেখে নিন বারগুলি : মুম্বাইয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় বার যেমন বার স্টক এক্সচেঞ্জে।
বিখ্যাত জুহু সৈকত: সমুদ্র সৈকতে বিখ্যাত বাড়া পাও খেতে ভুলবেন না।

দ্বিতীয় দিন

স্ট্রিট শপিং করুন, আর হিল রোড এর শপিং করবেন না।
একটি ক্যাফেতে বিশ্রাম নিন যেমন গ্র্যান্ডমামা ক্যাফে টি দারুন।
জনপ্রিয় ভার্সোভা এলাকা পরিদর্শন করুন
আর সঙ্গে সিলভার বিচ থেকে সূর্যাস্তের দৃশ্য অব্বুই দেখবেন

তৃতীয় দিন

শেষ দিনের জন্য সেরা জিনিসগুলি রাখুন।
রহস্যময় এলিফ্যান্টা গুহা।
মেরিন ড্রাইভে সমুদ্রের বাতাসে শ্বাস নিন মন ভরে।
রুফ টপ রেস্তোরাঁয় যেতে যেন ভুলবেন না।

mumbai matheran echo point
Mumbai Matheran echo point

ভারতের সবচেয়ে ধনী শহরগুলি

ভারতে নগরায়ণ, শিল্পায়ন, এবং বিশ্বায়ন সারা দেশ জুড়ে অনেক শহরকে প্রতিটি দিক থেকে দ্রুত উন্নতি এবং দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করেছে। ভারতে এমন অনেক শহর রয়েছে যা জিডিপির ভিত্তিতে বেশ সমৃদ্ধ।

মুম্বাই- সিটি অফ ড্রিমস্

আনুমানিক ৩১০ বিলিয়ন ডলারের জিডিপি সহ, মুম্বাই ভারতের ধনী শহরের তালিকায় এক নম্বরে রয়েছে। মুম্বাইতে টাটা গ্রুপ, রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ, আদিত্য বিড়লা গ্রুপ, লারসেন অ্যান্ড টুব্রো, গোদরেজ গ্রুপ, এবং হিন্দুস্তান পেট্রোলিয়ামের মতো বড় বড় ভারতীয় কোম্পানির সদর দপ্তর রয়েছে। শহরটি রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া, ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ, বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ এবং বলিউডের সদর দপ্তরও বটে।

দিল্লি- মাল্টিকালচারাল হাব অফ ইন্ডিয়া

ভারতের রাজধানী দিল্লি, বিশ্বের সবচেয়ে ধনী শহরগুলির মধ্যে একটি যার আনুমানিক জিডিপি ২৯৩.৬ বিলিয়ন ডলার। শহরটি রাজনৈতিক কেন্দ্র হওয়ায় এখানে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং বিশিষ্ট মন্ত্রণালয় সহ সকল বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং অফিস অধিকারীদের বাসস্থান রয়েছে। আধুনিক যুগের স্থাপত্যের নিদর্শনগুলির পাশাপাশি এই শহরের বহু প্রাচীন স্মৃতিস্তম্ভের নিদর্শন এর মধ্যে দিয়ে এখনও শহরের শৈল্পিক ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য প্রত্যক্ষ করা যায়।

কলকাতা- ট্যালেন্ট হাব অফ ইন্ডিয়া

বর্তমানে মুম্বাই এবং দিল্লির পর কলকাতা দক্ষিণ এশিয়ার তৃতীয় ধনী শহর। কলকাতাও ভারতের ধনী শহরের শীর্ষ তালিকার ১০ নাম্বারের মধ্যে রয়েছে যার আনুমানিক জিডিপি ১৫০.১ বিলিয়ন ডলার। আর্থিক দিক ছাড়াও কলকাতা শিল্প, স্থাপত্য এবং সংস্কৃতির দিক থেকেও সমৃদ্ধ। কোল ইন্ডিয়া লিমিটেড, আইটিসি লিমিটেড, ব্রিটানিয়া ইন্ডাস্ট্রিজ, এলাহাবাদ ব্যাংক, ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি এবং ইউনাইটেড ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার মতো অনেক ভারতীয় কর্পোরেশনের সদর দপ্তর।

বেঙ্গালুরু- সিলিকন ভ্যালি অফ ইন্ডিয়া

বেঙ্গালুরু ‘সিলিকন ভ্যালি অফ ইন্ডিয়া’ নামেও পরিচিত, প্রায় ১১০ বিলিয়ন ডলারের জিডিপি সহ ভারতের ধনী শহরের ২০ এর শীর্ষ তালিকায় স্থান অর্জন করেছে। এটি ভারতের আইটি রপ্তানিতে ৩৫ শতাংশের বেশি কারবার করে থাকে। এই শহরে কিছু বড় উৎপাদন শিল্প রয়েছে যেমন ভারত হেভি ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেড, ভারত ইলেকট্রনিক্স লিমিটেড এবং ভারত আর্থ মুভারস লিমিটেড। বেঙ্গালুরুতে ইনফোসিস এবং উইপ্রোর সদর দপ্তর রয়েছে।

চেন্নাই- ডেট্রয়েট অফ সাউথ এশিয়া

ভারতের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বড় অবদানের সঙ্গে, চেন্নাইও ভারতের সবচেয়ে ধনী স্থানগুলির মধ্যে একটি, যার জিডিপি প্রায় ৭৮.৬ বিলিয়ন ডলার। অটোমোবাইল শিল্প চেন্নাইয়ের অর্থনীতির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক। পর্যটন হল এই দক্ষিণ ভারতীয় শহরের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। পাশাপাশি শিল্প, সংস্কৃতি এবং সংগীতেও অগ্রগামী।

ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর কোনটি?

আয়তন অনুসারে ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর কলকাতা।

ভারতের বৃহত্তম জনবহুল শহর কোনটি?

মুম্বই ভারতের সর্বাধিক জনবহুল শহর। এই শহরের জনসংখ্যা প্রায় ১২,৬৯১,৮৩৬ (২০২০ সাল অনুসারে)।

ভারতের বৃহত্তম মেট্রোপলিটন শহর কোনটি?

ভারতের বৃহত্তম মেট্রোপলিটন শহরের নাম হল মুম্বাই।

ভারতের ক্ষুদ্রতম শহর কোনটি?

ভারতের ক্ষুদ্রতম শহর গঙ্গোত্রী।

আয়তনে বৃহত্তম শহর কোনটি?

আয়তনে বৃহত্তম শহর হল বেঙ্গালুরু (আয়তন প্রায় ৭৪১ বর্গ কিলোমিটার)।

ভারতের বৃহত্তম জেলা কোনটি?

ভারতের বৃহত্তম জেলা হল গুজরাটের কচ্ছ।

ভারতের ছোট শহর কোনটি?

ভারতের ছোট জনবহুল শহর হল পাঞ্জাবের কাপুরথালা জেলা।

আপনার কাছ থেকে আরো ৫ সেকেন্ড চাইছি এই আর্টিকেল টি শেয়ার করার জন্য।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।