পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম কি ? উত্তর: কলকাতা

উত্তর: পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম হল কোলকাতা বা কলকাতা ( Kolkata)।

কলকাতা শহর মানেই সংস্কৃতির এক প্রাণবন্ত প্রতিমূর্তি, ভালোবাসা, রহস্য, শ্রদ্ধা, উৎসাহ এবং তার সাথে বাঙালির প্রিয় মিষ্টান্ন তো আছেই। কলকাতাকে তাই ‘সিটি অফ জয়’ বলা হয়।
ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের রাজধানী হল কলকাতা। এটি পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম বৃহত্তম শহর এবং প্রধান বন্দর। শহরটি হুগলি নদীর পূর্ব তীরে অবস্থিত।

পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম কি
পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম কি

Table of Contents

কোলকাতা বা কলকাতা শহর

ব্রিটিশ শাসনকালে ভারতের রাজধানী ছিল কলকাতা শহর। ব্রিটিশ রাজের অধীনে ভারতের রাজধানী ছিল কলকাতা ১৭৭৩–১৯১১ সাল পর্যন্ত, যা ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বাণিজ্যিক অঞ্চল হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এখন এটি বিশাল ঔপনিবেশিক স্থাপত্য, আর্ট গ্যালারী এবং সাংস্কৃতিক উৎসবের জন্য পরিচিত। এখানে মাদার টেরেসা দ্বারা প্রতিষ্ঠিত মিশনারিস অফ চ্যারিটির সদর দফতর, আবার মাদার হাউসও রয়েছে। সেই স্থানেই রয়েছে তাঁর সমাধি।

কলকাতায় বসবাসকারী কয়েকজন বিখ্যাত বাঙালি যেমন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, সত্যজিৎ রায়, সুভাষ চন্দ্র বসু, সিভি রমন এবং অমর্ত্য সেন যারা সামগ্রিকভাবে রাজ্য ও দেশের প্রতি অবদানের জন্য চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

কলকাতা শহরটির ভারতের স্বাধীনতার পূর্বে নাম ছিল ক্যালকাটা (Calcutta), বাংলায় কলিকাতা নামের একটি সংস্করণ। কারও মতে, কলিকাতা বাংলা শব্দ কালীক্ষেত্র থেকে উদ্ভূত, যার অর্থ “দেবী কালী”। আবার কেউ কেউ বলে যে, খালের তীরে শহরের মূল বসতি ছিল, সেই অবস্থান থেকেই নামের উৎপত্তি। ২০০১ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে শহরটির নাম কলকাতা (Kolkata) য় পরিবর্তন করেন।

পড়ুন:- সমস্ত ভ্রমণ গন্তব্য গুলি

শ্যামবাজার এ নেতাজির স্ট্যাচু
শ্যামবাজার এ নেতাজির স্ট্যাচু

কলকাতার অজানা ইতিহাস

ব্রিটিশ রাজের সম্প্রসারণ পরিকল্পনার ফলস্বরূপ কলকাতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৬৮৬ সালে। ১৬৯০ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির প্রতিনিধি জব চার্নক প্রথম শহরে এসে স্থানীয় জমিদারের কাছ থেকে তিনটি গ্রাম (সুতানুটি, কলকাতা, গোবিন্দপুর) কিনেছিলেন। ১৬৯৯ সালে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কলকাতা শহরটিকে রাজধানী হিসাবে প্রতিষ্ঠা করে এবং এর নাম রাখে কলকাতা।

১৭৭২ সালে ব্রিটিশ ভারতের রাজধানী কলকাতা ঘোষণার পরে শহরে ব্রিটিশদের নিয়ন্ত্রণ শক্তিশালী হয়ে ওঠে। এই শহরটি দ্রুত শিল্পায়নের মধ্য দিয়ে যায়। কলকাতার গভর্নর জেনারেল রিচার্ড ওয়েলেসলি শহরের স্থাপত্য অধ্যাবসায়ের সাথে কাজ করেছিলেন এবং এটিকে “সিটি অফ প্যালেসেস” হিসাবে গড়ে তোলেন। এই সময় কলকাতা ব্রিটিশ শাসনের অধীনে ছিল।

১৮২০ থেকে ১৯৩০ সালের মধ্যে জাতীয়তাবাদের সূত্রপাত হয়েছিল যখন লর্ড কার্জন ১৯০৫ সালে শক্তিশালী ভারতীয় জাতীয়তাবাদী বিরোধিতা সত্ত্বেও বঙ্গভঙ্গ সম্পন্ন করেছিলেন। ১৯১১ সালে ভারতের রাজধানী কলকাতা থেকে দিল্লিতে স্থানান্তরিত হয় এবং পূর্ব বাংলা (বাংলাদেশ)ও পশ্চিমবঙ্গ পুনরায় একত্রিত হয়।

নন্দন
নন্দন

দক্ষিণ কলকাতা

কলকাতার অন্যতম প্রধান অঞ্চল হল দক্ষিণ কলকাতা, এই অঞ্চল অন্য শহরের তুলনায় কম জনবসতিপূর্ণ এবং আধুনিক হওয়ার জন্য পরিচিত। সবুজে ঘেরা বহু অঞ্চলও এখানে লক্ষ্য করা যায়।

দক্ষিণ কলকাতা মূলত ভারতবর্ষে স্বাধীনতা অর্জনের পরে ১৯৪৭ সালে গড়ে ওঠে। এর মধ্যে রয়েছে বালিগঞ্জ, আলিপুর, নিউ আলিপুর, বেহালা, বজবজ, ল্যান্সডাউন, ভবানীপুর, কালীঘাট, গড়িয়াহাট, চারু মার্কেট, চেতলা, যোধপুর পার্ক, লেক গার্ডেন, সাউথ সিটি, যাদবপুর, ঢাকুরিয়া ও টালিগঞ্জ প্রভৃতি।

এলাকায় উল্লেখযোগ্য স্থান: ভারতের জাতীয় গ্রন্থাগার, কালীঘাট মন্দির, ন্যাশনাল লাইব্রেরি, আশুতোষ কলেজ প্রভৃতি। তাছাড়া আলিপুর সংশোধনাগারও রয়েছে।

ন্যাশনাল লাইব্রেরি
ন্যাশনাল লাইব্রেরি

উত্তর কলকাতা

কলকাতার একটি উল্লেখযোগ্য অঞ্চল উত্তর কলকাতা এবং এটি শহরের প্রাচীনতম অংশ। এখানে সংকীর্ণ ছোট গলি এবং বহু বছরের পুরানো বাড়িঘর আছে। তাছাড়া, উত্তর কলকাতা ঐতিহাসিক জায়গা যেখানে প্রচুর পুরানো ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্য এবং মন্দির রয়েছে। এটি শ্যামবাজার, বাগবাজার, কুমারটুলি, শোভাবাজার, পোস্তা, জোড়াসাঁকো, রাজাবাজার, ফুলবাগান, মানিকতলা, কাঁকুড়গাছি, উল্টোডাঙ্গা, চিতপুর, বেলগাছিয়া, টালা, কাশীপুর এবং সিনথির মতো অনেকগুলি অঞ্চল নিয়ে গঠিত।

এলাকায় উল্লেখযোগ্য স্থান: ক্যালকাটা পুলিশ মিউজিয়াম, পরেশনাথ জৈন মন্দির, বেথুন কলেজ, স্কটিশ চার্চ কলেজ, জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি, শোভাবাজার রাজবাড়ী ইত্যাদি অবস্থিত।

জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি
জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি

মধ্য কলকাতা

মধ্য কলকাতা সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ, এমজি রোড, এসপ্ল্যানেড, পার্কস্ট্রিট, চাঁদনী চক, কাঁকুড়গাছি, বোউবাজার, কলেজ স্ট্রিট, বড়বাজার, তালতলা, জানবাজার, এন্টালি, লালবাজার, রবীন্দ্র সদন, বাবুঘাট, প্রিন্সেপ ঘাট, রাজাবাজার, মানিকতলা এবং আশেপাশের অঞ্চল নিয়ে গঠিত।

এলাকায় উল্লেখযোগ্য স্থান: মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, নাখোদা মসজিদ, টিপু সুলতান মসজিদ, মেটকাফ টাউন হল প্যারাডাইজ সিনেমাহল প্রভৃতি।

টিপু সুলতান মসজিদ
টিপু সুলতান মসজিদ

বাংলার নবজাগরণ

বেঙ্গল রেনেসাঁস, যা বাংলার নবজাগরণ নামেও পরিচিত, এটি একটি সাংস্কৃতিক, সামাজিক,
আধ্যাত্মিক এবং শৈল্পিক আন্দোলন, যা ব্রিটিশ রাজের বাংলা অঞ্চলে অষ্টাদশ শতকের শেষভাগ থেকে বিশ শতকের গোড়ার দিকে সংঘটিত হয়েছিল।

১৯ শতকে “বাংলা নবজাগরণ” এর সূচনা হয়েছিল। শিক্ষার প্রসার ও পশ্চিমাকরণের মধ্য দিয়ে বাংলায় ‘রেনেসাঁস’ পর্ব শুরু হয়। বহু সমাজ সংস্কার আন্দোলন পরিচালিত হয়েছিল। ক্রমবর্ধমান বুদ্ধিজীবী জনগোষ্ঠী স্বাধীনতার অর্থ বুঝতে শুরু করে এবং শহরটি ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। সমস্ত কিছুর ফলে ব্রিটিশ ভারতের রাজধানী দিল্লিতে স্থানান্তরিত হয়। স্থানান্তরিত হওয়ার পরেও বাণিজ্য ও স্বাধীনতা সংগ্রামের একটি প্রধান কেন্দ্র ছিল কলকাতা।

বাংলা নবজাগরণের কেন্দ্র ছিল কলকাতা এবং এর নেতৃত্বে ছিলেন রাজা রামমোহন রায় (১৭৭২-১৮৩৩)। অনেক ঐতিহাসিক রামমোহন রায়কে “বেঙ্গল রেনেসাঁর ফাদার” বলে মনে করেন। শ্রেষ্ঠ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১–১৯৪১)এই বিষয় অনুপ্রাণিত ও প্রভাবিত করেছিলেন। তিনি ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দেশের জাতীয় সংগীত রচনা করেন এবং ১৯১৩ সালে সাহিত্যের জন্য নোবেল পুরষ্কার পান।

লালবাজার
লালবাজার

পড়ুন:- পশ্চিমবঙ্গের সব থেকে বড় জেলা

ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে পশ্চিমবঙ্গ ও কলকাতার ভূমিকা

বিংশ শতাব্দীর শুরুটি কলকাতার জন্য একটি উদ্বেগজনক সময়ের সূচনা করেছিল। ভারতের ভাইসরয় লর্ড কার্জন ১৯০৫ সালে পূর্ব বাংলা ও পশ্চিমবঙ্গকে দুটি ভাগ করে দিয়েছিলেন এবং পূর্ব বাংলা ও আসামের রাজধানী করেছিলেন ঢাকাকে। আগ্রাসী আন্দোলনের ফলে ১৯১১ সালে এই বিভাজন বাতিল হয়ে যায়, কিন্তু সেই সময় ব্রিটিশ ভারতের রাজধানী কলকাতা থেকে দিল্লিতে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

এদিকে, কলকাতার জনসংখ্যা আরও বাড়ার সাথে সাথে সামাজিক সমস্যাগুলি আরও জোরালো হয়ে ওঠে, ভারতের জন্য স্বদেশ শাসনের দাবিও ছিল। ১৯২৬ সালে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়েছিল এবং জাতীয়তাবাদী নেতা মোহনদাস গান্ধী আইন অমান্য আন্দোলন মেনে চলার আহ্বান জানান। সবচেয়ে গুরুতর সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়েছিল ১৯৪৬ সালে, যখন ব্রিটিশ ভারতের বিভাজন আসন্ন হয় এবং মুসলিম ও হিন্দুদের মধ্যে উত্তেজনা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে যায়।

কলকাতার পরিদর্শনীয় স্থান

কলকাতা শহরে প্রচুর দর্শনীয় স্থান রয়েছে। শহরের আকর্ষণীয় শিল্প, চমৎকার স্থাপত্য, আশ্চর্য সংস্কৃতি এবং সাহিত্য পর্যটকদের স্বাগত জানায়।

Kolkata tour guide

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল

কলকাতার অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটনস্থান ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল, এখানে বিশ্বের বহু পর্যটক ভ্রমণে আসেন। শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত, ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল রানী ভিক্টোরিয়ার একটি স্মৃতি সৌধ। রানী ভিক্টোরিয়ার স্মরণে ১৯০৬ থেকে ১৯২১ সালের মধ্যে নির্মিত হয়েছিল, যা ভারতের ভাইসরয় লর্ড কার্জনের প্রতিষ্ঠা। স্মৃতি সৌধটি সাদা মার্বেল দিয়ে সুন্দরভাবে তৈরি করা। এটি কলকাতা পর্যটনের একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে একটি সুন্দর যাদুঘর আছে যেখানে ব্রিটিশ যুগের ঢাল তরোয়াল, অস্ত্র, প্রাচীন কালের বই, ভাস্কর্য, রানী ভিক্টোরিয়ার পোশাক-সাজসজ্জা, প্রভৃতি সংরক্ষণ করে রাখা আছে।

ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল
ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল

হাওড়া ব্রিজ

হাওড়া ব্রিজ বিশ্বের চতুর্থ ব্যস্ততম সেতু, কলকাতায় ভ্রমণের জন্য সেরা স্থানগুলির সন্ধানের সময় হাওড়া ব্রিজের নাম শুনতে পারবেন। হুগলি নদীর উপর নির্মিত নিদর্শনটি কলকাতার প্রবেশদ্বার হিসাবে কাজ করে এবং হাওড়ার পূর্ব তীরকে কলকাতার পশ্চিম তীরের সাথে সংযুক্ত করে। এই স্থাপত্যগত সেতুটির নির্মাণ কাজ ১৯৩৬ সালে শুরু হয়েছিল এবং শেষ হয়েছিল ১৯৪২ সালে। নোবেল বিজয়ী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে সম্মান জানাতে স্বাধীনতার পরে ১৯৬৫ সালে এই সেতুর নামকরণ করা হয়েছিল রবীন্দ্র সেতু। এই সেতুতে প্রতিদিন প্রায় ১০০,০০০ যানবাহন এবং ১৫০,০০০ পথচারী যাতায়াত করে।

দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দির

দক্ষিণেশ্বর মন্দিরটি কলকাতার একটি জনপ্রিয় তীর্থস্থান যা প্রতিটি পর্যটকের কাছে একটি আকর্ষণের জায়গা। এই মন্দিরের স্থাপত্য শিল্প চারিদিক থেকেই প্রদর্শনীয়। এখানে ভবতারিণী দেবীর পূজো করা হয় যা দেবী কালীর আরেক রূপ, এই মন্দির ১৮৫৫ সালে রানী রাসমণি দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। বাঙালি স্থাপত্যের সর্বোত্তম নব-রত্ন রীতিতে এই মন্দির নির্মিত।

দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দির
দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দির

কালীঘাট

ভারতের ৫১ টি শক্তি পিঠগুলির মধ্যে কালীঘাট একটি, যেখানে শিবের রুদ্র তান্ডব চলাকালীন সতীর দেহের বিভিন্ন অঙ্গের মধ্যে ডান পায়ের আঙ্গুল পড়েছিল বলে জানা যায়। কালীঘাট, একটি শ্রদ্ধেয় হিন্দু মন্দির যা ১৮০০ এর দশকের গোড়ার দিকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই মন্দিরের ভেতরে বেশ কয়েকটি বেদী এবং ছোট ছোট মন্দির রয়েছে যেখানে অন্যান্য দেব-দেবীদেরও পূজো করা হয়।

পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম কি ? উত্তর: কলকাতা
কালীঘাট

বেলুড় মঠ

হুগলি নদীর পশ্চিম তীরে অবস্থিত ঐতিহাসিক বেলুড় মঠ বিশ্বজুড়ে শান্তিকামীদের স্বাগত জানায়। এখানে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলেই আসতে পারেন। এই জনপ্রিয় তীর্থস্থান শ্রী রামকৃষ্ণ, শ্রী সারদা দেবী এবং স্বামী বিবেকানন্দকে উৎসর্গীকৃত প্রার্থনা স্থান এবং মন্দিরগুলি নিয়ে গঠিত। শ্রী রামকৃষ্ণের বিশ্রামের স্থান হিসাবে, মঠের মধ্যে একটি স্মৃতিসৌধ রয়েছে এবং দর্শনার্থীদের জন্য স্বামীজীর ঘরে তাঁর ব্যবহার করা জিনিসপত্র প্রদর্শিত হয়। চমৎকার স্থাপত্য এবং আধ্যাত্মিক পরিবেশন বেলুড় মঠকে কলকাতায় বেড়াতে যাওয়ার অন্যতম সেরা জায়গা করে তুলেছে।

বেলুড় মঠ
বেলুড় মঠ

সায়েন্স সিটি

সায়েন্স সিটি বিশ্বের অন্যতম সেরা এবং বৃহত্তম বিজ্ঞান যাদুঘর। এটি ১ জুলাই ১৯৯৭ সাল থেকে চলছে এবং এটি কলকাতার মানুষের পাশাপাশি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দর্শনার্থীদের জন্য একটি বড় আকর্ষণ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। এখানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি উপস্থাপন করা হয় যা সত্যিই সব বয়সের মানুষের জন্য শিক্ষামূলক এবং উপভোগ্য। বছরের পর বছর ধরে, এটি তরুণ এবং বৃদ্ধ সকলের জন্য স্মরণীয় অভিজ্ঞতা এবং উপভোগের স্থান হয়ে উঠেছে। এই জায়গার মধ্যে স্পেস থিয়েটার, থ্রিডি শো, ন্যাচারাল সায়েন্স পার্ক, থিম পার্ক, ডাইনোসরস্ কমপ্লেক্স এবং টাইম মেশিন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

সায়েন্স সিটি
সায়েন্স সিটি

মার্বেল প্যালেস

মার্বেল প্যালেস প্রাসাদটি উত্তর কলকাতার চোরবাগানের কাছে অবস্থিত। এটি ১৮৩৫ সালে বিখ্যাত শিল্পী রাজেন্দ্র মল্লিক দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। জায়গাটি সেরা শিল্পকর্ম এবং রেনল্ডস, ভ্যান গগ এবং রেমব্র্যান্ডের মতো বিভিন্ন নামী আন্তর্জাতিক শিল্পীদের চিত্রকলা সংরক্ষণের জন্য সুপরিচিত। পূর্বে প্রাসাদে একটি চিড়িয়াখানা ছিল, কিন্তু বর্তমানে কেবল কয়েকটি প্রজাতির পাখি আছে।

মার্বেল প্যালেস
মার্বেল প্যালেস

সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল

সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল সিএনআইয়ের (চার্চ অফ নর্থ ইন্ডিয়া) অধীনে পরিচালিত একটি অঞ্চল। এই চার্চটি ঐতিহাসিক নিদর্শন এবং স্থাপত্য শৈলীর জন্য পরিচিত। ক্রিসমাসের সময়, ক্যাথেড্রাল চার্চটি লাইট এবং মোমবাতি দ্বারা সজ্জিত করা হলে আরও সুন্দর দেখায়। এমনকি ক্যাথেড্রালকে ঘিরে একটি বাগান রয়েছে এবং এর সাদা পরিকাঠামো সৌন্দর্য আরও বাড়ায়। এটি ক্রিসমাসের সময় রাতে কলকাতায় বেড়াতে যাওয়ার অন্যতম সেরা জায়গা। এছাড়াও সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল এর নিকটে আক্যাডেমি অফ ফাইন আর্টস, রবীন্দ্রসদন, নন্দন, মোহরকুঞ্জ, বিড়লা প্লানেটরিয়াম, নেতাজী ভবন, মাদার হাউস প্রভৃতি রয়েছে।

সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল
সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল

বিড়লা প্লানেটরিয়াম

বিড়লা প্লানেটরিয়াম কলকাতায় ভ্রমণের সেরা স্থানগুলির মধ্যে বিখ্যাত, যা বিজ্ঞান প্রেমীদের জন্য এটি একটি আদর্শ জায়গা। ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল এবং সেন্ট পলস ক্যাথেড্রাল নিকটবর্তী চৌরঙ্গি রোডে অবস্থিত বিড়লা প্ল্যানেটরিয়াম যা এশিয়ার বৃহত্তম এবং বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম তারামণ্ডল। বিড়লা প্ল্যানেটরিয়ামটি পন্ডিত জওহরলাল নেহেরু দ্বারা ২ জুলাই ১৯৬৩-এ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এটি কলকাতায় স্থানীয়ভাবে তারামণ্ডল হিসাবে পরিচিত। বিড়লা প্ল্যানেটরিয়াম প্রায়শই হিন্দি, ইংরেজি, বাংলা এবং অন্যান্য আঞ্চলিক ভাষায় অনেকগুলি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

ভারতের রাজধানীর নাম কি?

নয়া দিল্লি, ভারতের জাতীয় রাজধানী। এটি দেশের উত্তর-কেন্দ্রীয় অংশে যমুনা নদীর পশ্চিম তীরে, দিল্লি শহর (পুরাতন দিল্লি) এর ঠিক দক্ষিণে অবস্থিত।

পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় পশুর নাম কি?

পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় পশুর নাম হল ফিশিং ক্যাট বা মেছো বিড়াল।

পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় ফুল কী?

পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় ফুল শিউলি।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর নাম কি?

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর নাম মমতা ব্যানার্জী। (২০২১ সাল)

পশ্চিমবঙ্গের কয়টি জেলা?

পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে মোট ২৩ টি জেলা রয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় পাখির নাম কি?

পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় পাখির নাম হল সাদাবুক মাছরাঙা, যা ধলাগলা মাছরাঙা নামেও পরিচিত।

পশ্চিমবঙ্গের প্রথম মুখ্যমন্ত্রীর নাম কী?

প্রফুল্ল চন্দ্র ঘোষ (২৪ ডিসেম্বর ১৮৯১- ১৮ ডিসেম্বর ১৯৮৩) ভারতের পশ্চিমবঙ্গের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন।

আপনার কাছ থেকে আরো ৫ সেকেন্ড চাইছি এই আর্টিকেল টি শেয়ার করার জন্য।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।